পড়াশোনা সবসময় সবখানে

পড়াশোনা সবসময় সবখানে

কুড়িগ্রামে স্বপ্নকুঁড়ির যাত্রা শুরু

2019-Feb-11 1:54 AM
কুড়িগ্রামে বন্যার দৃশ্য

‘স্বপ্ন দেখি স্বপ্ন দেখাই’ স্লোগানে দেশের দরিদ্রতম জেলা কুড়িগ্রামের শিশু-কিশোরসহ সব মানুষকে স্বপ্ন দেখিয়ে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশে উদ্বদ্ধ করতে স্বপ্নকুঁড়ির নামক সেন্টারের উদ্বোধন করা হয়েছে। কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে গত শনিবার বিকেলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ স্বপ্নকুঁড়ি সেন্টাররের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি-বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদ। জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউনিসেফ রংপুর ও রাজশাহী বিভাগীয় প্রধান নাজিবুল্লাহ হামীম, এসডিজির অতিরিক্ত সচিব মোজাম্মেল হোসেন, কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার মেহেদুল করীম প্রমুখ।

জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এবং ইউনিসেফের সহযোগিতায় শিশু-কিশোরদের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলাসহ আর্থসামাজি উন্নয়ন, যুবকদের বেকারত্ব দূরীকরণ ও কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে দিকনির্দেশনামূলক কাজ করবে এই স্বপ্নকুঁড়ি। পাশাপাশি জেলার সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে অর্থনৈতিক ভাবে স্বাবলম্বী করে গড়ে তুলতেও কাজ করবে এই স্বপ্নকুঁড়ি।

স্বপ্নকুঁড়ি কুড়িগ্রামের মানুষের ভাগ্য উন্নয়ের পথ হিসেবে প্রধান লক্ষ্য হতে পারে না বলে অনেকে মনে করতে পারে। তবে এটা একটি হলেও যে উন্নয়েনের পথ দেখাবে তা আশা করা যায়। কুড়িগ্রাম কে উন্নয়নের অনেক পথ তৈরি করতে হবে। তা না হলে এই অঞ্চলের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন সম্ভব নয়। কেননা এই অঞ্চলের প্রধান দারিদ্রর কারণ হচ্ছে বন্যা ও নদী আর কৃষি যেখানে অর্থনৈতিক প্রধান মাধ্যম সেখানে শুধু কৃষি কে প্রধান লক্ষ্য করা যাবে না। কারণ হচ্ছে ভৌগোলিক গত ভাবে ঘন ঘন বন্যা, নদী ভাঙ্গনের মাটির গুণা গুণ নষ্ঠ হওয়া সহ কুড়িগ্রামের কৃষি পুরোপুরি অর্থনৈতিক লক্ষ্য অর্জন সম্ভব নয়।

সুতরাং কুড়িগ্রামের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সচেতন নাগরিক গঠন সহ প্রয়োজন আধুনিক শিল্প কারখানা স্থাপন এবং প্রসারণ করা। যেখানে কুড়িগ্রামের মানুষ শীত, বর্ষা, গ্রীষ্মেও দৈনিক অর্থ উপার্জন করে তাদের দারিদ্র মোচন করতে পারবে।

জনসচেতনা ও উন্নয়নের দৃষ্টিকোণ থেকে কতৃপক্ষকে উপরোক্ত পদক্ষেপ গুলোকে বাস্তবায়ন করা অত্যন্ত জরুরি।

 

Go to Diploma in eng.

Go to School & College